Breakingখাগড়াছড়িপার্বত্য অঞ্চলসারাদেশ

মুক্তিযোদ্ধা পুলিশ সদস্যদের সংবর্ধনা প্রদান করলেন খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার

স্টাফ রিপোর্টার, খাগড়াছড়ি :
খাগড়াছড়ি জেলা জেলা পুলিশের আয়োজনে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী পুলিশের বীর মুক্তিযোদ্ধা দের সংবর্ধনা ও সম্মাননা স্বারক প্রদান করেন জেলার পুলিশ সুপার মুক্তা ধর।

 

১৯ ডিসেম্বর ২০২৩ মঙ্গলবার খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশ অফিস সম্মেলন কক্ষে পুলিশ বীর মুক্তি যোদ্ধাদের সংবর্ধনা প্রদান করা হয়।

 

সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সূচনায় খাগড়াছড়ি জেলার ৪ জন পুলিশ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান খাগড়াছড়ি জেলার পুলিশ সুপার মুক্তা ধর ।

 

পরে পুলিশ অফিস সম্মেলন কক্ষে পুলিশ বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ অনুভূতি ও মুক্তিযুদ্ধকালীন তাদের স্মৃতিবিজড়িত ঘটনা ব্যক্ত করেন ।

 

এ অনুষ্ঠানে খাগড়াছড়ি জেলার পুলিশ সুপার মুক্তা ধর ১৯৭১ সালের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে বলেন রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে ১৯৭১ সালে সর্বপ্রথম সশস্ত্র প্রতিরোধ শুরু হয়েছিল। ১৯৭১ সালের ২৫ শে মার্চ পাকিস্তানি বাহিনী কর্তৃক যে অপারেশন সার্চলাইট পরিচালিত হয় সেই অপারেশনের প্রথম লক্ষ্য ছিল রাজারবাগ পুলিশ লাইন আক্রমণ করা। ২৫ শে মার্চ রাত্রে পাকিস্তানি বাহিনী রাজারবাগ পুলিশ লাইন ঘিরে ফেলে তখন মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে প্রথম বুলেট নিক্ষিপ্ত হয় চামেলিবাগ পুলিশ ব্যারিকেড থেকে, যার ফলে নিহত হন দুইজন পাকিস্তানি সেনা। পুলিশদের অস্ত্র ও গোলা বারুদ ফুরিয়ে গেলে হানাদার বাহিনী তুমুল গতিতে আক্রমণ শুরু করে। পাকিস্তানি সেনারা সারারাত গুলি ও কামানের গোলা বর্ষন করে বহু পুলিশ হত্যা করে। এখান থেকেই শুরু হয় মুক্তিযুদ্ধ।এসময় জেলা পুলিশ সুপার উপস্থিত মুক্তিযুদ্ধাগনের শারীরিক ও পারিবারিক খোঁজ খবর নেন এবং খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশ সবসময় মুক্তিযোদ্ধাদের যেকোনো সমস্যায় তাদের পাশে আছেন এই অভিপ্রায় ব্যক্ত করেন।

 

এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) (পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতি প্রাপ্ত) মাহমুদা বেগম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ক্রাইম অ্যান্ড অপস) মোঃ জসীম উদ্দিন পিপিএম, খাগড়াছড়ি সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ তফিকুল আলম ছাড়াও জেলা পুলিশের পদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

Related Articles

Check Also
Close
Back to top button